বগুড়ার বাঙ্গালী নদীতে ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ সম্পন্ন

0
2195
বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ সম্পন্ন

বগুড়া, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ (নোঙরনিউজ) : জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলার মাছিরপাড়া এলাকায় বাঙালি নদীর উপর প্রায় ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে গার্ডার ব্রিজটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এ ব্রিজ দিয়ে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নসহ তিনটি উপজেলার মধ্যে যোগাযোগ সহজ হবে। বগুড়া সারিয়াকান্দি-সোনাতলা আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন চলতি ডিসেম্বরের শেষে ব্রিজটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হবে।

জানা যায়, সারিয়াকান্দি উপজেলার বোহাইল, কামালপুর, কুতুবপুর, কর্নিবাড়ীসহ ৫টি ইউনিয়নের মানুষ বাঙালি নদী পারাপারে দীর্ঘদিন ধরেই দুর্ভোগ পোহাতো। এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সারিয়াকান্দি উপজেলার মাছিরপাড়া নামক স্থানে বাঙ্গালী নদীর উপর ব্রিজটি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের প্রচেষ্টায় গত ২০১৪ সালের মে মাসে ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় চলতি বছরের জুলাই মাসে। ব্রিজটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয় প্রায় ২৭ কোটি ৯৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা। ৯টি স্প্যানের মাধ্যমে ব্রিজটি নির্মাণ হয়। বগুড়া জেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় এ ব্রিজটির দৈর্ঘ্য ৩১৫ মিটার, চওড়া ৭.৩০ মিটার।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) বগুড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ নাঈম উদ্দিন মিয়া জানান, সারিয়াকান্দি উপজেলার মাছিরপাড়ায় গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। যোগাযোগের ক্ষেত্রে ব্রিজটি ভূমিকা রাখবে। ব্রিজ দিয়ে এখন খুব সহজে সারিয়াকান্দি, গাবতলী ও ধুনট উপজেলা ছাড়াও জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারবে স্থানীয় বাসিন্দারা। আশা করা হচ্ছে আগামী ডিসেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় আসবেন। ওই সময় তিনি ব্রিজটির উদ্বোধন করবেন। উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী ব্রিজটির ভিত্তি ফলকের উন্মোচন করেন।

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার ডোমকান্দি এলাকার শফিকুল ইসলাম জানান, ব্রিজটি নির্মাণের ফলে এলাকার মানুষ যোগযোগের ক্ষেত্রে এগিয়ে যাবে। আগে নৌকা করে পার হতে হতো। নদী ভরা থাকলে মৃত্যু ঝুঁকি থাকতো। আবার শুষ্ক মৌসুমে তপ্ত বালুর উপর দিয়ে চলাচল ছিল দুসাধ্য। ব্রিজ নির্মাণের ফলে এলাকার মানুষের দুর্ভোগ কমবে এখন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে