শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে যমুনা নদীতে ৫০ কিলোমিটার সাঁতার প্রতিযোগিতা

0
8

বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭৪ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইল জেলা ক্রীড়া অফিসের আয়োজনে ‘শেখ কামাল ৫০ কিলোমিটার যুমনা সাঁতার প্রতিযোগিতা’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এতে প্রথম হয়েছে বগুড়া জেলার সাতারু রাব্বি মিয়া। তার সময় লেগেছে ৬ ঘন্টা ৭ মিনিট, ২য় হয়েছে প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া একমাত্র নারী সাঁতারু গাইবান্ধা জেলার সোহাগী আক্তার। তার সময় লেগেছে ৬ ঘন্টা ১৮ মিনিট, ৩য় হয়েছে টাঙ্গাইলের সাতারু বদর উদ্দিন। তার সময় লেগেছে ৬ ঘন্টা ৩১ মিনিট এবং চতুর্থ হয়েছে সাতারু আল আমিন আকিক। তার সময় লেগেছে ৬ ঘন্টা ৩৭ মিনিট, পঞ্চম হয়েছে সাতারু মনিরুজ্জামান। তার সময় লেগেছে ৭ ঘন্টা ৫ মিনিট ও ষষ্ঠ হয়েছে সাতারু আব্দুল্লাহ আল মাহি। তার সময় লেগেছে ৭ ঘন্টা ৬ মিনিট।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ক্রসবার-১ থেকে শনিবার সকাল ৯ টায় শুরু হওয়া এই সাতার প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ১৭ জন সাঁতারু। সিরাজগঞ্জ সদর থেকে যমুনা সেতু পার হয়ে এই সাঁতার শেষ হয় জেলার চৌহালি উপজেলার জোতপাড়া ঘাটে।

টাঙ্গাইল জেলা ক্রীড়া অফিসার আল-আমিন সবুজ জানান, বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে একঝাক দুঃসাহসিক সাঁতারু যমুনা নদীতে অংশ নেন ৫০ কিলোমিটার দূরত্বের সাঁতারে।

অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে অনেকেই ৪৬, ৩০ ও ২০ কিলোমিটার এবং বাংলা চ্যানেল সাঁতারে অংশ নিলেও প্রথমবারের মতো ৫০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করার পরিকল্পনা করছেন তারা। দুঃসাহসিক এই অভিযানের মধ্য দিয়ে তৃণমূল পর্যায়ে সাঁতার শেখার বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করছেন সাঁতারুরা। এছাড়া এই আয়োজনের আগে টাঙ্গাইল এবং সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্কুলে সাঁতারের প্রয়োজনীয়তা এবং গুরুত্ব নিয়ে ছাত্রছাত্রীদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। ৫০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করার এই প্রচেষ্টায় ১৬ জন পুরুষের সাথে আছেন বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেয়া সর্বকনিষ্ঠ নারী সাঁতারু গাইবান্ধা জেলার সাতারু সোহাগী আক্তার।

পুরুষদের মধ্যে রয়েছেন ক্রীড়া পরিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস. আই. এম ফেরদৌউস আলম, বাংলাদেশ টেলিভিশনের উর্ধ্বতন চিত্রগ্রাহক মনিরুজ্জামান, স্ট্যান্ডর্ড ব্যাংক লি. এর টাঙ্গাইল ব্রাঞ্চের শাখা প্রধান বদর উদ্দিন, গণপূর্ত বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী জামিল হোসেন, রাজশাহী জেলার শাহরিয়ার, গেট-এইড লি. এর প্রধান গণসংযোগ কর্মকর্তা ইশতিয়াক, নরসিংদী জেলার কামাল হোসেন, কুমিল্লা জেলার আল আমিন আকিক, বগুড়া জেলার রাব্বী রহমান ও নাজমুন সাকিব সাইমুম, গাজীপুর জেলার হেলাল উদ্দিন, টাঙ্গাইল জেলার শাকিল হোসেন, রংপুর জেলার আব্দুল্লাহ আল তওসিফ, নরসিংদী জেলার বকুল সিদ্দিকী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আবুল কালাম আজাদ ও মোনতাসির মোহাম্মদ সামি এরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। এই সাতার প্রতিযোগিতা দেখতে যমুনা নদী তীরবর্তী এলাকায় বিপুল সংখ্যক দর্শক উপস্থিত ছিলেন।

প্রত্যেক সাঁতারুদের সাথে একটি করে নৌকা এবং দুইজন করে ভলান্টিয়ার দেয়া হয়েছিল। ৫০ কিলোমিটার সাঁতার শেষে চৌহালী উপজেলার যোতপাড়া ঘাটে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন মিয়া ভাই ফাউন্ডেশনের সভাপতি মিজানুর রহমান মিয়া। চৌহালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন টাঙ্গাইল জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা আল আমিন সবুজ, সিরাজগঞ্জ জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা মাসুদ রানা। বাসস

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে