ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে আগুনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৬

0
44

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ নামে একটি লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৯০ জন। আহতদের মধ্যে ৭৫ জনকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও  ১৫ জনকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে মৃতদের নামপরিচয় জানা যায়নি। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছেন।

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা  উদ্ধারকাজ তদারকি করছেন।

লঞ্চটির যাত্রী, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) রাত ৩টার দিকে হঠাৎ যাত্রীরা আগুন দেখে চিৎকার শুরু করে। কিন্তু কিছু বুঝে উঠার আগেই লঞ্চটিতে আগুন ধরে যায়। এসময় কিছু যাত্রীরা লাফিয়ে নদীতে পড়ে সাতরে পাড়ে উঠে। এছাড়া স্থানীয় ট্রলার চালকরা এগিয়ে গিয়ে লঞ্চ ও নদী থেকে বেশ কিছু যাত্রীদের উদ্ধার করে।

লঞ্চের যাত্রী মো. মোহসীন জানান, রাত ৩টার দিকে হঠাৎ নীচ থেকে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখি। এরপর আগুনের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় আমি ৩ তলা থেকে লাফ দিয়ে প্রাণে বেচে যাই।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আ. কাইয়ুম নামে এক যাত্রী জানান, আমি দোতালায় ঘুমিয়ে ছিলাম। আগুনের তাপে ঘুম ভেঙ্গে দেখি পুরা লঞ্চটিতে আগুন ধরে গেছে। তখন লাফ দিয়ে নদীতে পড়তে বাধ্য হই।

ঘটনার পর ভোর ৬ টার দিকে ঝালকাঠির কলেজ খেয়াঘাট এলাকায় নদী থেকে ১৩ বছরের এক কিশোরীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তার সঙ্গে থাকা মা জানান, তারা ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশ্যে মা ও মেয়ে এক সঙ্গে লঞ্চে উঠেছিল। কিন্তু আগুন লাগার পর মেয়েকে পাওয়া যায়নি। খুঁজতে খুঁজতে এখানে এসে মেয়েকে পেয়েছি।
এ বিষয়ে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে গিয়ে জানাযায় ভোর ৭টা নাগাদ ৬৬ জন ভর্তি হয়ে গুরুতর আহতদের বরিশালে পাঠানো হয়েছে।

ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বে থাকা বরিশাল ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক মো. কামাল উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, এখনো উদ্ধার কাজ চলছে। এখানে মোট ৫টি ইউনিট এ কাজে অংশ নিয়েছে। আগুন নিভানো হলেও উদ্ধার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিস্তারিত কিছুই বলা যাচ্ছে না।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে