স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে লালবাগের আজাদ মুসলিম ওয়েলফেয়ার শিশু-কিশোরদের পুরস্কৃত করেছে।

0
19
মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে লালবাগের আজাদ মুসলিম ওয়েলফেয়ার শিশু-কিশোরদের বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত।

বাংলাদেশের নদী-পরিবেশ, প্রাণ-প্রকৃতি সুরক্ষায় সবাইকে সচেতন করতে হবে এবং নদীর রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে।

মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বিজয় দিবস ২০২১ উপলক্ষে ঢাকা লালবাগ এলাকায় সপ্তাহব্যাপী বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় আনন্দে মেতে উঠে ছিলো শিশু-কিশোর এবং অভিভাবক বৃন্দ।

গতকাল বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর, বিকাল ৪:৩০ মিনিটে লালবাগের আজাদ মুসলিম ওয়েলফেয়ার কমপ্লেক্স হল রুমে শিশুদের কবিতা পাঠের মাধ্যমে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান শুরু হয়।

আলহাজ্ব হোসেন আক্তার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা মো. জহির উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক-নাট্যশিল্পী-শিশুসাহিত্যিক ও গীতিকবি আসলাম সানি এবং নদী নিরাপত্তার সামাজিক সংগঠন ‘নোঙর বাংলাদেশ’ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নদীপুত্র সুমন শামস।

কবি আসলাম সানি বলেন, মহান স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে শিশুকিশোরদের জন্য এই ধরণের জাতীয় দিবসে সাংস্কৃতিক আয়োজনকে আমি সাধুবাদ জানাই। এ ধরণের আয়োজন আরো বেশী বেশী করা খু্ব জরুরী। কারণ আজকের শিশু আগামীর ভবিষ্যৎ। তাদের বেড়ে ওঠার সাথে সাথে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, বাংলা সংস্কৃতি এবং ঢাকার নিজস্ব সংস্কৃতি সম্পর্কে জানাতে হবে।

সুমন শামস বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় নদীমাতৃক বাংলাদেশের প্রত্যেকটি নদীও মুক্তিযোদ্ধা ছিলো। আমাদের ছেলে বেলার পাঠ্যসূচীতে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের ৭ শ্রেষ্ঠ বীরের নাম পড়েছি কিন্তু কার আহবানে মুক্তিযুদ্ধ হয়ে ছিলো সে কথা লেখা ছিলো না। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস থেকে বঞ্চিত হয়েছে তাই আমাদের প্রজন্ম। ধূলোপড়া সেই সঠিক ইতিহাস জানতে গিয়ে আমাদের প্রজন্ম গণজাগরণ মঞ্চ তৈরী করে স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার চিহ্নিত করে মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধুকে সম্মানিত করেছে। সুতরাং আজকের শিশুদের পাঠ্যসূচীতে ৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস যুক্ত করার কোন বিকল্প নেই।

একই সাখে নদীমাতৃক কৃষি প্রধান বাংলাদেশের সকল নদ-নদী মুত্তিযোদ্ধার ভূমিকা পালন করে ছিলো। এখন সেই নদীর বুকে চলছে দখল-দূষণ প্রতিযোগীতা। বাংলাদেশের নদী-প্ররিবেশ, প্রাণ-প্রকৃতি সুরক্ষায় সবাইকে সচেতন করতে হবে এবং নদীর রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে