প্লাস্টিক বর্জ্যের ক্ষতিকর প্রভাব, সমুদ্র ও নদীপ্রকৃতি রক্ষায় আমাদের ভুমিকা শীর্ষক নোঙর’র ভাসমান সভা

0
69

সাগরের পানিতে প্লাস্টিক বর্জ্য কি কি ক্ষতি সাধণ করে এবং আমাদের পরিবেশ রক্ষায় নদ-নদীর ভুমিকা শীর্ষক একটি ভাসমান সভার আয়োজন করেছে নদী নিরাপত্তার সামাজিক সংগঠন নোঙর বাংলাদেশ।

গত শুক্রবার বিকেলে নোঙর-কক্সবাজার জেলার পেকুয়া ইউনিটের আয়োজনে বঙ্গোপসাগারের মোহনায় মগনামা-কুতুবদিয়া চ্যানেলে এ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভার প্রধান বক্তা নোঙর বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সুমন শামস এর উপস্থিতিতে কক্সবাজার জেলা ইউনিটের আহবায়ক ড. জাকির হাওলাদারের সভাপতিত্ব করেন। আমন্ত্রীত বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মগনামা ইউপি চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম ও জেলা সমন্বয়ক আব্দুল আলিম গিয়াস। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন জেলা সদস্য সচিব এফ এম সুমন।

এ ছাড়াও সভায় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সদস্য দর্পন জামিল, আমিনুল হক, এফ এইচ সবুজ, নোঙর-ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সভাপতি শামীম আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক খালেদা মুন্নি, সহ সভাপতি মোহাম্মদ মনরুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক শিপন কর্মকার প্রমুখ।

সভায় বক্তরা বলেন, সমুদ্রের পানিতে প্লাস্টিক বর্জ্য দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। প্লাস্টিক বর্জ্য উদ্ভিদকুল, সাগর ও নদীর জলজ প্রাণী, বিশেষ করে কুতুবদিয়ার মতো দ্বীপ অঞ্চলের জলজ প্রাণীরা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এ বর্জের ফলে।

তারা আরো বলেন, সকল প্রকার প্লাস্টিক বর্জ্য জলজ প্রাণীর বাসস্থান, খাদ্য সংগ্রহের স্থান ও খাদ্য গ্রহণের পথে বাধার সৃষ্টি করে চলেছে। শুধু তাই নয় মানুষও প্লাস্টিক দূষণের কারণে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে দাবী করেন বক্তারা।

কোন প্রকার প্লাস্টিক বর্জ্য সাগর নদীর পানিতে না ফেলাসহ প্লাস্টিক ব্যবহারে সকলকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান বক্তারা।

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নোঙর ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলা ইউনিটের সভাপতি কক্সবাজার জেলা ইউনিটের সদস্য মাস্টার জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, ডাক্তার আশেক উল্লাহ, নুর আয়েশা খান ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়ক আজগর হোছাইন, পেকুয়া রোবার স্কাউর্টসের মোহাম্মদ ছাদেক, জাহেদুল ইসলাম বাবু, আসাদুজ্জামান নুরসহ জেলা নোঙরের সকল ইউনিটের বিভিন্ন স্থরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভা শেষে একটি সচেতনতামুলক র‌্যালি মগনামা ঘাটঁ থেকে বের হয়ে প্রধান সড়ক হয়ে মগনামা ঘাট বাজারে এসে শেষ হয় সেখানে বক্তারা সাগরের পানিতে প্লাস্টিক বর্জ্য না ফেলার অনুরোধ জানান এই ছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ পেকুয়া সদরের ভোলা খালে রাসায়নিক বর্জ্য ফেলে জলজ প্রাণী হুমকির মুখে পড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং দ্রুত যারা এসব পদার্থ ফেলে পানির এতবড়ো ক্ষতি করছেন তাদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে শেষে পেকুয়া উপজেলার আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় সভাপতি সুমন শামস। এ ঘোষণায় ‘নোঙর- পেকুয়া উপজেলার আহবায়ক হিসেবে ইসমাইল খান এর নাম ঘোষণা করা হয়।, সদস্য সচিব হিসেবে মনোনীত হয়েছেন জনাব আবু ছাদেক এবং সাধারণ সদস্য হিসেবে নুরুল আমিন ও নাজমুন নাহার নৌরিন মনোনীত হয়েছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে