৬০০ শরণার্থী ভর্তি নৌকা বন্দরে ঢুকতে দেবে না ইতালি

0
562

ঢাকা, ১১ জুন, ২০১৮ (নোঙরনিউজ ডেস্ক) : ইতালির নতুন পপুলিস্ট সরকার দেশটিতে একটি শরণার্থী ও অভিবাসী ভর্তি নৌকাকে ঢুকতে দেবে না। ৬০০’র অধিক শরণার্থী ও অভিবাসী ভর্তি নৌকাটির জন্য খুলে দেয়া হবে না দেশটির কোন বন্দর। তার বদলে ভূমধ্যসাগরীয় দেশ মাল্টাকে এক চিঠিতে নৌকাটিকে ঢুকতে দেয়ার আহবান জানিয়েছে ইতালি সরকার। তবে মাল্টা এই আহবানে সাড়া দেয়নি। এ খবর দিয়েছে ইতালি।

খবরে বলা হয়, নৌকাটিকে ঢুকতে দেয়ার জন্য ইতালির আহবানে সাড়া দেয়নি মাল্টা। তারা জানিয়েছে, এই উদ্ধার অভিযানের সঙ্গে মাল্টার কোন সম্পর্ক নেই।

ইতালির নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাত্তেও সালভিনি বলেন, এখন ইতালি মানব পাচারকে ‘না’ বলাও শুরু করেছে। অভিবাসনের অবৈধ ব্যবসাকে ‘না’ বলা শুরু করেছে।

সালভিনি আরো বলেন, আমার লক্ষ্য হচ্ছে আফ্রিকা ও আমাদের দেশের শিশুদের শান্তিপূর্ণ জীবন নিশ্চিত করা। তিনি এখন থেকে ‘ইতালি ফার্স্ট’(সবার আগে ইতালি) নীতি মেনে চলার প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি কয়েক হাজার অভিবাসীকে তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর কথাও জানান।

প্রসঙ্গত, বিগত পাঁচ বছরে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে ৬ লাখেরও বেশি মানুষ নৌকায় করে ইতালিতে পৌঁছেছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে এই সংখ্যা নাটকীয়ভাবে কমে গেছে। পাশাপাশি বৃদ্ধি পেয়েছে উদ্ধার কাজ।

রবিবার দাতব্য সংস্থা এসওএস মেডিটিরিয়ান এক টুইটে জানায় যে, তাদের জাহাজ, দ্য একুয়ারিস ৬২৯ জন শরণার্থী ও অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে। এদের মধ্যে ১২৩ জন অভিভাবকহীন অপ্রাপ্তবয়স্ক, ১১ শিশু ও ৭ জন গর্ভবতী নারী রয়েছেন।

দাতব্য সংস্থাটি জানিয়েছে, তারা লিবিয়া উপকূলের ছয়টি পৃথক স্থান থেকে এইসব অভিবাসী ও শরণার্থীদের উদ্ধার করেছে। তারা আরো জানিয়েছে, জাহাজটি এখন একটি নিরাপদ স্থানে যাচ্ছে। তবে কোথায় যাচ্ছে তা বলা হয়নি। যদিও বিগত পাঁচ বছরে তাদের প্রায় সবগুলো জাহাজই ইতালিতে গিয়ে পৌঁছেছে।

বর্তমানে জাহাজটি যে পথে যাচ্ছে সে পথে যাত্রা অব্যাহত রাখলে জাহাজটি মাল্টা অতিক্রম করে ইতালিতে পৌঁছাবে। ইতালির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সালভিনি মাল্টা সরকারকে লেখা এক চিঠিতে দ্য একুয়ারিসকে তাদের কোন বন্দরে থামার সুযোগ করে দেয়ার আহবান জানিয়েছেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, নাম না প্রকাশের অনুরোধে ওই কর্মকর্তা আরো জানান, ইতালি দ্য একুয়ারিসকে কোন বন্দরে জায়গা দেবে না। ইতালীয় গণমাধ্যমেও একই কথা বলা হয়েছে। এ বিষয়ে ইতালির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বা স্থানীয় কোস্টগার্ডদের কাছ থেকে মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে