করোনা: ‘এ’ গ্রুপে ঝুঁকি বেশি, ‘ও’ গ্রুপে কম

0
46

করোনা সংক্রমিত হলে তা শরীরে কতটা মারাত্মক ঝুঁকি তৈরি করবে তা নির্ভর করে মানুষের রক্তের ধরনের উপরেও৷ এমন একটি সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছেন ইউরোপের একদল গবেষক৷ নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল মেডিসিনে তাদের গবেষণার ফলাফল প্রকাশ হয়েছে৷

করোনায় আক্রান্ত হলেও অনেকের শরীরের কোনো লক্ষণই প্রকাশ পায় না৷ আবার কেউ কেউ সাধারণ সর্দি, জ্বরে ভুগেই সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন৷ কারো কারো ক্ষেত্রে মারাত্মক শারীরিক সমস্যা দেখা দিচ্ছে, যার পরিপ্রেক্ষিতে ঘটছে মৃত্যু৷ মানুষের শরীরে একই ভাইরাসের এত ধরনের আচরণ কেন? এর সঙ্গে কি রক্তের ধরনের কোনো সম্পর্ক আছে?

জার্মানি, ইটালি, স্পেন, ডেনমার্ক সহ আরো কয়েকটি দেশের গবেষকরা মিলে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খুঁজেছেন৷ তারা বিভিন্ন দেশের কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের উপর পরীক্ষা চালিয়েছেন৷ তাদের গবেষণার ফলাফল বলছে আক্রান্তদের শারীরিক ঝুঁকির মাত্রা কেমন হবে তার সঙ্গে রক্তের টাইপ বা ধরনের একটি সম্পর্ক রয়েছে৷ যাদের রক্তের ধরন ‘এ’ তারা এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন৷

মানুষের রক্তকে চারটি ভাগে ভাগ করা হয়: এ, বি, এবি এবং ও৷ গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী ‘এ’ রক্ত বহনকারীদের কোভিড-১৯ এ মারাত্মক ঝুঁকি অন্যদের তুলনায় ৪৫ ভাগ বেশি৷ অন্যদিকে ‘ও’ রক্তধারীদের এমন ঝুঁকি ৩৫ ভাগ কম৷ গবেষকরা বলছেন এই রক্ত বহনকারীরা কিছু বিশেষ প্রোটিনকে সহজে শনাক্ত করতে পারে৷ বিজ্ঞানীদের ধারণা করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রে একই ধরনের কিছু প্রোটিন তারা চিহ্নিত করতে পারে৷ যে কারণে ঝুঁকি কম থাকে৷ বি এবং এবি রক্ত বহনকারীদের করোনা সংক্রমণে ঝুঁকির মাত্রা অন্য দুটির মাঝামাঝি৷

গবেষকদের একজন নরওয়ের ওসলো বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের ড. টম কার্লসেন৷ তিনি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘‘কোভিড ১৯ এ মারাত্মকভাবে আক্রান্তদের ক্ষেত্রে রোগটি কী ধরনের আচরণ করে এই গবেষণার ফলাফল তার কিছু নির্দিষ্ট ধারণা দিচ্ছে৷’’

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ এর পরিচালক ও জীন বিশেষজ্ঞ ফ্রান্সিস কলিনস তার এক ব্লগে লিখেছেন,  কিছু জীনগত পরীক্ষা এবং ব্যক্তির রক্তের ধরনের উপর নির্ভর করে কারা বেশি ঝুঁকিতে আছেন তা বের করতে গবেষণার এই তথ্যগুলো সহায়তা করবে৷ (রয়টার্স, এপি)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here