প্রাণহীন এক অদ্ভুত পহেলা বৈশাখ

0
261

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে রমনা পার্ক শুধু মানুষ আর মানুষ৷ গ্রামগঞ্জে মেলা, ঘরে ঘরে উৎসব৷ এমনই বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখের চিরায়িত রূপ৷ এবার ভিন্ন আবহে ‘গৃহবন্দি’ এক পহেলা বৈশাখ উৎযাপন করল জাতি৷ 

ছিল না রাস্তায় মানুষের ভীড়৷ উৎসবের চেয়ে যেন নিরন্ন মানুষের মুখে আহার তুলে দেওয়া, ভয়-আতঙ্ক দূর করে স্বাভাবিক পৃথিবী ফিরে আসার আকুতি ছিল মানুষের মধ্যে৷

স্বাধীনতার পর থেকে রমনা বটমূলে ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে গান গেয়ে নতুন বছর বরণের আয়োজন করে আসছে ছায়ানট৷ বাঙালির প্রাণের এই উৎসব আরো রাঙিয়ে দেয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রা৷ এছাড়াও সারাদেশেই হয় বিভিন্ন আয়োজন৷ এবার সেসবের কিছুই নেই৷ ঢাকা এখন সুনসান নীরব৷ করোনা ভাইরাসের থাবায় প্রাণহীন পহেলা বৈশাখ৷

৪৯ বছরে ছেদ পড়ল ছায়ানটের অনুষ্ঠান

১৯৭১ সালের পর থেকে কখনই বন্ধ হয়নি ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান৷ শুধুমাত্র ২০০১ সালে তীব্র বাধা এসেছিল অনুষ্ঠান না করতে৷ শেষ পর্যন্ত অনুষ্ঠান হয়েছে৷ ছায়ানটের নির্বাহী সভাপতি ড. সারওয়ার আলী ডয়চে ভেলেকে বলেন, এই পরিস্থিতিতে অনুষ্ঠানের কথা তো আমরা ভাবতেই পারি না৷ তবুও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সব নিয়ম কানুন মেনে খুবই ছোট্ট পরিসরে বিটিভিতে একটা অনুষ্ঠান হয়েছে৷ কারো কোন বিরোধীতা নেই, তবুও হলো না ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান৷ কেন হল না, কেন আমরা করতে পারিনি- সেটা সবাই জানেন৷ আসলে এই সময়টা আমাদের নিরন্ন মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে৷ এখন উৎসব নয়, মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়াই প্রধান চ্যালেঞ্জ৷ সবার একটাই চাওয়া, করোনা যুদ্ধে যেন আমরা জয়ী হতে পারি৷ 

মঙ্গল শোভাযাত্রার টাকায় পিপিই

প্রতি বছরই পহেলা বৈশাখে মঙ্গল শোভযাত্রার আয়োজন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগ৷ ‘‘এবার মঙ্গল বার্তা নিয়ে আসা মঙ্গল শোভাযাত্রাও বাতিল করা হয়েছে জাতির মঙ্গলের কথা চিন্তা করেই,’’ ডয়চে ভেলেকে বলছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার আহমেদ৷ তিনি বলেন,  ‘‘গত মাসে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রথম বৈঠকেই আমি বলেছি, এবার আমরা আয়োজন করব না৷ সেটা সম্ভবও না৷ এটা এক বিরাট কর্মযজ্ঞ৷ শত শত শিক্ষার্থী এই আয়োজনে যুক্ত হতেন৷ এবার তেমনটা কিছুই হয়নি৷’’

অধ্যাপক নিসার বলেন, ‘‘এবার আমরা সকল শিক্ষক বড় অংকের একটা তহবিল তৈরী করে সেটা দিয়ে পিপিই তৈরী করেছি৷ মঙ্গল শোভাযাত্রায় আমরা এই টাকা খরচ করতাম৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বসে এবং গার্মেন্টস ব্যবসায়ী বন্ধুদের দিয়ে আমরা তিন হাজার ৩০০ পিস উন্নত মানের পিপিই তৈরী করেছি৷ সেটা বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে চিকিৎসকদের দেওয়া হয়েছে৷ এখন আমরা যে যুদ্ধে নেমেছি, এই যুদ্ধের কৌশলটি হচ্ছে আমাদের ঘরে অবস্থান করা৷ এই যুদ্ধে জয়ী হওয়ার এটাই একমাত্র কৌশল৷ আমরা কিন্তু ভয়ে ঘরে অবস্থান করছি না৷ এই যুদ্ধে জয়ী হতে গেলে আমাদের এটাই মানতে হবে৷ ৩০ বছর পর ৩১ বছরে এসে ছেদ পড়ল মঙ্গল শোভাযাত্রার৷’’ 

অর্থনীতির বিরাট ক্ষতি, ক্ষতিগ্রস্থ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা

পহেলা বৈশাখ ঘিরে বিরাট এক কর্মযজ্ঞ শুরু হয় অনেক আগে থেকেই৷ বিশেষ করে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা মেলার জন্য অনেক কিছু তৈরী করেন৷ এবার সবকিছুই বন্ধ হয়ে গেছে৷ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারাই এমন মনে করেন বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিচার্স ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখ কেন্দ্রিক যে অর্থনীতির ক্ষতিটা হয়ে গেল সেটা কোনভাবেই পূরণ করা যাবে না৷ কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এটা তো বিশেষ উৎসব ঘিরে৷ এই উৎসব তো আর ফিরিয়ে আনা যাবে না৷ শুধুমাত্র এই একটি উৎসব যেখানে শুধু দেশীয় পণ্যই বিক্রি হয়৷ মানুষ মেলায় যায়, দেশীয় পণ্য কেনাকাটা করে৷ গ্রামীণ নারীরা অনেক কিছু তৈরী করেন৷ অনেকেই এই মেলাকে ঘিরে সারা বছরের একটি পরিকল্পনা সাজান৷ তাদের ক্ষতি তো পুষিয়ে দেওয়া যাবে না৷ 

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, করোনার কারণে অর্থনীতির যে ক্ষতিটা হচ্ছে তার মধ্যে পহেলা বৈশাখের ক্ষতি বড় একটা মাত্রা যোগ করবে৷ আমাদের দেশে ৬ কোটি ১০ লাখ শ্রমিক আছেন৷ এর মধ্যে এক কোটি শ্রমিক দিন এনে দিন খায়৷ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কর্মসংস্থান যারা করেন তাদের সংখ্যা ২ কোটি ২০ লাখ৷ তাদের মধ্যে একটা বড় অংশ এই ধরনের কর্মকাণ্ডে কুটিরশিল্পে কাজ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা সরকারকে বলেছি, একটি পরিবারে চারজন আছেন এমন একটি পরিবারকে মাসে আট হাজার টাকা হিসেবে দুই মাসের ১৬ হাজার টাকা দিতে৷ তাতে সরকারের ২৭ হাজার কোটি টাকা লাগবে, যা জিডিপির এক শতাংশ৷ এভাবেই এই ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের সহায়তা করা যেতে পারে৷

ঘরে পহেলা বৈশাখের আয়োজন 

সোমবার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘‘বাঙালির সার্বজনীন উৎসব বাংলা নববর্ষ৷ প্রতিটি বাঙালি আনন্দ-উল্লাসের মধ্য দিয়ে উদযাপন করে থাকেন এই উৎসব৷ এ বছর বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের মহামারির কারণে পহেলা বৈশাখের বাইরের সব অনুষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে৷ সবাই ঘরে ঘরে এই উৎসব পালন করুন৷ আঁধার কেটে নিশ্চয়ই আলো ফুটে উঠবে৷’’

ঘর থেকে কেউ বের হয়নি সত্য৷ কিন্তু ঘরের মধ্যে কি সত্যি পহেলা বৈশাখের আয়োজন হয়েছে৷ রাজধানীর মিরপুরের শেওড়াপাড়ার বাসিন্দা ইমরুল হাসান ডয়চে ভেলেকে বলেন, এভাবে কি বৈশাখ হয়৷ অন্য আর ১০টা দিনের মতোই বন্দি দিন কেটেছে৷ তবে খাওয়াতে কিছুটা ভিন্নতা ছিল৷ শেওড়াপাড়ার আরেক বাসিন্দা জাকির হোসেন বলেন, ‘‘আজ তো ছিল আমরা দোকানের হালখাতা৷ নতুন খাতা খোলা হলো না৷ অনেকেই বাকী রাখেন, হালখাতায় শোধ করেন৷ এখন কিভাবে আমার পাওনা টাকা উঠবে, সেটা নিয়ে দুঃচিন্তায় আছি৷ দোকান বন্ধ, কর্মচারীদের বেতন কিভাবে দেবো? সব মিলিয়ে কষ্টে আছি৷’’ডয়েচে ভেলে

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে