মুক্তি পাচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া

0
39
দেখা হয়েছে

করোনা নিয়ে সরকার ও বিরোধীদের পরস্পরের দোষারোপের মধ্যেই বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷ সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে দুই বছরেরও বেশি সময় কারাগারে থাকার পর তিনি বুধবার মুক্তি পেতে পারেন৷

খালেদা জিয়ার এই মুক্তি তার সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে দুই শর্তে৷ আর শর্ত দু’টি হলো: খালেদা জিয়াকে বাসায় থেকে বাংলাদেশের হাসপাতালেই চিকিৎসা নিতে হবে৷ এবং তিনি মুক্তির সময়ে দেশের বাইরে যেতে পারবেন না৷ তবে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার এই সিদ্ধান্তের মধ্যে করোনা পরিস্থিতিকে বিবেচনা করছেন অনেকেই৷

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর খবর দেয়া হয় ৮ মার্চ৷ এখন পর্যন্ত চারজনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়৷ আক্রান্তের সংখ্যা ৩৯ জন৷ এরইমধ্যে পুরো দেশ অবরুদ্ধ হওয়ার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে৷ ঢাকা ও ঢাকার বাইরে কয়েকটি এলাকা লকডাউন করা হয়েছে৷ ২৭ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে৷ গণপরিবহনও একই দিন থেকে বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে৷ শিল্প ও পোশাক কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে৷ মঙ্গলবার থেকে মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী৷ তারা জনসমাগম বা জটলা করতে দেবেনা৷ সরকারের পক্ষ থেকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে৷ যদিও ঢাকা থেকে গ্রামে ছুটছেন মানুষ, যা করোনা পরিস্থিতিকে আরে জটিল করতে পারে৷ 

এই পরিস্থিতির মধ্যে খালেদা জিয়াকে মুক্তির সিদ্ধান্ত দেশের মানুষের মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে৷ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে আইন অনুযায়ী শর্ত সাপেক্ষে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন৷ খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা এবং দেশের পরিস্থিতি বিবেচনা করে তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ তার শারীরিক অবস্থা, বয়স এবং করোনার কারণে প্রধানমন্ত্রী সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ কারণ সবার এখন বাড়িতে থাকা প্রয়োজন, হোম কোয়ারান্টিনে থাকা প্রয়োজন৷”

এটা করোনার কারণে রাজনীতি বদলে যাওয়া কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সবসময় পরিস্থিতিতো আর এক থাকে না৷ এখন পুরো বিশ্বই দুর্যোগের মুখে৷ তাই আগের রাজনৈতিক চিত্রতো বদলাবেই৷ এখন মানুষের জীবনই বড় কথা৷ রাজনীতির কথা পরেও ভাবা যাবে৷”

খালেদা জিয়ার মুক্তির সিদ্ধান্তের খবরের পর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নেতা-কর্মীদের শান্ত থাকতে বলেছেন৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গুলশানে চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ের সামনে তিনি তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এই আহ্বান জানান৷ তিনি বলেন, ‘‘এখন করোনা ভাইরাস আক্রমণের এই সময়ে দলের নেতাকর্মীরা শান্ত থাকবেন৷ কেউ যেন আক্রান্ত না হন খেয়াল রাখবেন, শান্ত থাকবেন৷ এই মুহূর্তে স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নবান হবেন৷” 

‘‘সবার এখন বাড়িতে থাকা প্রয়োজন’’

আর বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘করোনা দেশে দেশে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট পাল্টে দিচ্ছে৷ এই দুর্যোগে রাজনীতির অনেক কিছু বদলে যাচ্ছে৷ আমি মনে করি সেই প্রেক্ষাপটেই সরকার খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ আমার মনে করি সরকার মানবিক এবং ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তারা এই সিদ্ধান্ত যদি বহাল রাখে তাহলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে অবশ্যই গুণগত এবং মানবিক পরিবর্তন আসবে৷”

আর রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক শান্তনূ মজুমদার বলেন, ‘‘সময় এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকার খালেদা জিয়াকে সঠিক সময়ে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ আমরা মনে হয় এরমধ্যে রাজনৈতিক বিবেচনা যেমন আছে তেমনি মানবিক দিকও আছে৷ করোনার কারণে বিশ্ব এবং দেশের যা পরিস্থিতি তাতে খালেদা জিয়াকে এখন বাসায় রাখাই সঠিক৷”

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়৷ ওই দিনই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়৷ পরে দুদকের আপিলে এই মামলায় সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হয়৷ এরপর তাকে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়৷ ২০১৯ সালের এপ্রিল থেকে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এর প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন আছেন৷

  • ডয়েচে ভেলে: লেখক হারুন উর রশীদ স্বপন (ঢাকা)

আপনার মন্তব্য লিখুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন