করোনা ভাইরাস আক্রান্ত অর্থনীতি

0
76
দেখা হয়েছে

প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা ভাইরাসে (কভিড-১৯) মৃতের সংখ্যা। চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। ২০০৩ সালে পৃথিবীতে আতঙ্ক তৈরি করেছিল সার্স। চীন থেকে উদ্ভূত হয়েছিল সার্স। ওই রোগে ৮ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছিল, মারা গিয়েছিল ৭৭৪ জন। সেই সময়ে বৈশ্বিক জিডিপির ৪ শতাংশ আসত চীন থেকে। তখনই বৈশ্বিক অর্থনীতির অন্তত ৪ হাজার ৫০০ কোটি ডলার ক্ষতি হয় বলে অর্থনীতিবিদরা জানিয়েছিলেন। আর গত বছর বৈশ্বিক জিডিপিতে চীনের অবদান ছিল ১৬ শতাংশ। সুতরাং সার্সের তুলনায় বিশ্ব অর্থনীতিতে করোনা ভাইরাসের প্রভাব হবে আরো বিধ্বংসী।

করোনা ভাইরাসের কারণে চীনের প্রবৃদ্ধির হার কমে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, সেহেতু স্বাভাবিকভাবেই বৈশ্বিক জিডিপিতেও এর প্রভাব পড়বে। কারণ, বর্তমানে বিশ্বের মোট উত্পাদনের এক-পঞ্চমাংশ আসে চীন থেকে।

নিউ ইয়র্ক টাইমসসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, চীনে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে অধিকাংশ বড়ো কোম্পানির কারখানায় উত্পাদন স্থগিত রাখা হয়েছে। আরো দুই মাস উত্পাদন বন্ধ থাকলে বিশ্ব প্রযুক্তিপণ্যের বাজারে বড়ো বিপর্যয় দেখা দেবে।

করোনা ভাইরাস আতঙ্কে বাতিল হয়ে গেছে প্রযুক্তি দুনিয়ার সবচেয়ে বড়ো আয়োজন মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস (এমডব্লিউসি)। প্রতি বছর এ আয়োজনেই নতুন প্রযুক্তিপণ্যের সঙ্গে পরিচয় করে দেওয়া হতো দুনিয়াকে। সম্প্রতি এমডব্লিউসির আয়োজক জিএসএমএ কর্তৃপক্ষ জানায়, করোনা ভাইরাসের বিস্তারজনিত চরম উদ্বেগজনক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ২৪ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি স্পেনের বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিতব্য এমডব্লিউসির আয়োজন বাতিল করা হয়েছে। বিশ্ব অর্থনীতির জন্য করোনা ভাইরাস ইতিমধ্যে মারাত্মক উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি চীন ও বৈশ্বিক অর্থনীতিতে চরম বিপর্যয় ডেকে এনেছে। চলতি বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ২ দশমিক ৩ শতাংশে নেমে আসবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা- যা হবে ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দার পর সর্বনিম্ন বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি। বিশ্ব অর্থনীতিতে ক্ষতির পরিমাণ ১৫ হাজার কোটি মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা জানিয়েছেন, চীনের করোনা ভাইরাস বৈশ্বিক অর্থনীতিকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে। এতে পণ্যের সরবরাহ ব্যবস্থা বিঘ্নিত হচ্ছে এবং পর্যটন খাতেও প্রভাব পড়ছে। আইএমএফ প্রধান বিশ্বকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, স্বল্প মেয়াদে হলেও করোনা ভাইরাস বিশ্ব অর্থনীতির গতি মন্থর করতে পারে। তবে দীর্ঘ মেয়াদে কী হবে, তা এখন বলা কঠিন। যত দ্রুত সম্ভব এ ভাইরাস মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

আকস্মিকভাবে বিক্রি কমার পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা অ্যাপল। আমেরিকার জেনারেল মোটরস নিজ দেশে যত গাড়ি বিক্রি করে, তার চেয়ে বেশি হয় চীনে। তার উত্পাদনও কমেছে। জাপানের টয়োটারও একই অবস্থা। বিশ্বের বৃহত্তম অনলাইন রিটেইল শপ আমাজনের মজুদে টান পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্ অর্থনীতি জাপান, দক্ষিণ কোরিয়াসহ বহু দেশে। এসবের একটিই কারণ করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব। চীনকে বলা হয় ‘বিশ্বের কারখানা’। সারা বিশ্বে যত পণ্য উত্পাদিত হয় তার এক-চতুর্থাংশ আসে চীন থেকে। ফলে চীনে উত্পাদন ব্যাহত হলে তার প্রভাব হবে ভয়াবহ। আইএমএফ প্রধান ক্রিস্টালিনা জর্জিভা তাই যথার্থই বলেছেন, বিশ্ব এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড়ো যে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে তার নাম করোনা ভাইরাস বা কভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব। অনেক অর্থনীতিবিদ ও বিশ্লেষক আশঙ্কা করছেন, করোনার কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা দেখা দিতে পারে। করোনা ভাইরাস এমন সময় আঘাত হানল যখন বিশ্ব একটি মন্দা কাটিয়ে উঠতে শুরু করেছিল। জর্জিভা বলেছেন, করোনা দীর্ঘস্থায়ী হলে চীন ও বিশ্ব অর্থনীতির ওপর তার তাত্পর্যপূর্ণ প্রভাব পড়বে। কারণ, এতে পণ্য সরবরাহ বিঘ্নিত হবে, বিনিয়োগকারীদের আস্থা কমবে। ফলে এর বৈশ্বিক প্রভাব হবে বহুমুখী। চলতি শতাব্দীর শুরুতে চীন বিশ্ব অর্থনীতির ৮ শতাংশের মালিক ছিল। এখন বেইজিং নিয়ন্ত্রণ করছে বিশ্ব অর্থনীতির ১৯ শতাংশ বা প্রায় এক-পঞ্চমাংশ। অর্থনৈতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান অক্সফোর্ড ইকোনমিকস তাদের পূর্বাভাসে বলেছে, করোনা ভাইরাস এশিয়ার বাইরে ছড়িয়ে পড়লে বিশ্ব অর্থনীতির ক্ষতি হবে ১ লাখ ১০ হাজার কোটি (১ দশমিক ১ ট্রিলিয়ন) ডলারের, যা বিশ্বের মোট অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ১ দশমিক ৩ শতাংশ। বিশ্বের ১৬তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ ইন্দোনেশিয়ার জিডিপির সমান ক্ষতি হবে এতে। অক্সফোর্ড ইকোনমিক্স বলছে, ইতিমধ্যে করোনার ‘শীতল প্রভাব’ পড়তে শুরু করেছে। কারণ চীনের কারখানা বন্ধের প্রভাব প্রতিবেশী দেশগুলোর ওপর পড়তে শুরু করেছে। এর ফলে বিশ্বের বড়ো কোম্পানিগুলো বিভিন্ন পণ্যের উপকরণ এবং তৈরি পণ্য এসব দেশ থেকে সংগ্রহ করতে হিমশিম খাচ্ছে। যেমন অ্যাপলের আয় কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ, আইফোনের উত্পাদন ও বিক্রি কমে যেতে পারে। চীন আইফোনের এক বড়ো ক্রেতা। গাড়ি নির্মাতা জাগুয়ার ল্যান্ডরোভার সরবরাহ সমস্যায় ভুগছে বলে জানিয়েছে। করোনার কারণে চীনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার গত বছরের ৬ শতাংশ থেকে কমে এবার ৫ দশমিক ৪ শতাংশ হতে পারে।

করোনা ভাইরাস আরো ছড়িয়ে পড়লে চলতি বছর বিশ্বের জিডিপি ৪০ হাজার কোটি ডলার কমে যেতে পারে। অক্সফোর্ড ইকোনমিকস বলছে, জিডিপি প্রবৃদ্ধি কমার কারণ হচ্ছে চীনা ক্রেতাদের বিলাসি পণ্য কেনার হার কমবে এবং ভ্রমণ ও পর্যটনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এ ছাড়া প্রভাব পড়বে বিনিয়োগ ও শেয়ারবাজারেও। ইতিমধ্যে চীনসহ কয়েকটি দেশের শেয়ারবাজারে ধাক্কা লেগেছে করোনার।

চীনের ওপরও করোনার প্রভাব হবে ভয়াবহ। প্রাদুর্ভাব দীর্ঘস্থায়ী হলেও চীনের বড়ো কোম্পানিগুলো টিকে থাকতে সক্ষম হবে তবে বহু কর্মী চাকরিচ্যুত হবেন, কমবে বেতন। জরিপে দেখা গেছে, দেশটির শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৮৫ শতাংশ বড়ো কোম্পানি ছয় মাস পর্যন্ত স্বাভাবিকভাবে টিকে থাকতে পারবে।

চীনের এক হাজার ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ওপর দেশটির দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালিত জরিপে দেখা যায়, এক মাসে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে এক-তৃতীয়াংশ কারখানা তহবিলশূন্য হয়ে পড়বে। এ ছাড়া ৭০০ কোম্পানির ওপর পরিচালিত আরেক জরিপে দেখা যায়, সেগুলোর ৪০ শতাংশই তিন মাসের মধ্যে তহবিলশূন্য হয়ে যাবে। বাস্তবতা হচ্ছে পরিস্থিতির দিন দিনই অবনতি হচ্ছে। করোনা ভাইরাসের কারণে জাপানের অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বড়ো ধরনের প্রভাব পড়তে পারে দক্ষিণ কোরিয়া ও জার্মানির অর্থনীতিতেও। মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরের অর্থনীতিতে প্রভাব অনিবার্য বলে দেশগুলো জানিয়েছে। চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের অন্তর্ভুক্ত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোও করোনার ধাক্কা এড়াতে পারবে না। প্রভাব পড়বে এসব দেশের কর্মসংস্থান ও অর্থনীতিতে। চীনের বড়ো বাণিজ্যিক অংশীদার ব্রাজিলে মন্দা দেখা দিতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রও করোনার প্রভাবমুক্ত থাকবে না। চীন এখন আমেরিকায় অটো কারখানার যন্ত্রাংশ সরবরাহ করে। বাংলাদেশ, তুরস্ক, মেক্সিকোসহ বহু দেশের পোশাক কারখানাগুলোও ভীষণভাবে চীনের কাঁচামালের ওপর নির্ভরশীল।

চীন শুধু সারা বিশ্বে পণ্য সরবরাহই করে না। চীনের ১৪০ কোটি মানুষ এখন ইলেকট্রনিক গ্যাজেট, ফ্যাশনেবল পোশাক আর বিদেশ ভ্রমণেও প্রচুর অর্থ ব্যয় করে থাকে। দেশটির মানুষের আয় দেড় যুগেরও কম সময়ে বেড়েছে কয়েক গুণ। ২০০৩ সালে চীনাদের বার্ষিক গড় আয় ছিল ১৫০০ ডলার। গত বছর তা পৌঁছায় ৯০০০ ডলারে। ইন্টেল ২০১৯ সালে চীনে পণ্য বিক্রি করে আয় করেছে ২০০০ কোটি ডলার, যা ওই বছরে কোম্পানির মোট আয়ের ২৮ শতাংশ। মোবাইল ফোনের শীর্ষ চিপ নির্মাতা কোয়ালকমের আয়ের ৪৭ শতাংশ আসে চীন থেকে। ২০১৯ সালে চীনে চিপ বিক্রি করে কোম্পানিটি আয় করেছে ১২০০ কোটি ডলার। বিশ্বব্যাংক বলছে, সার্সের পর চীনের অর্থনীতির আকার আট গুণ বড়ো হয়েছে। জিডিপির আকার ১ লাখ ৭০ হাজার কোটি ডলার থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ কোটি ডলারে।

বিনিয়োগ তহবিল ব্যবস্থাপক ম্যাথিউ এশিয়ার অর্থনীতিবিদ অ্যান্ডি রটম্যান বলেছেন, বিশ্বের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির এক-তৃতীয়াংশ আসে চীন থেকে। যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও জাপানের মোট প্রবৃদ্ধির চেয়েও চীন এগিয়ে। আমেরিকার বহুজাতিক বিনিয়োগ ব্যাংক মর্গ্যান স্টানলির এশিয়া বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান স্টিফেন রোচ সম্প্রতি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা দেখা দিতে পারে।

আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সমিতি (আইএটিএ) জানিয়েছে, এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে করোনা ভাইরাসের কারণে এবার ২ হাজার ৯৩০ কোটি ডলার ক্ষতি হবে। এবার বিমান সংস্থাগুলোর যাত্রী ১৩ শতাংশ কমে যাবে বলে সংস্থাটি জানিয়েছে। আইএটিএর সিইও অ্যালেক্সান্দ্রে ডি জুনিয়াক এক বিবৃতিতে বলেছেন, বিমান সংস্থাগুলোর জন্য এ বছরটি কঠিন যাবে। করোনার কারণে প্রতিদিন ১৩ হাজার ফ্লাইট বাতিল করা হচ্ছে। শুধু চীন নয় যুক্তরাষ্ট্রের বাজারেও নেতবািচক প্রভাব লক্ষ করা যাচ্ছে। গত সাত বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সেবা খাতের ব্যাবসায়িক কার্যক্রম সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় পৌঁছেছে। দেশটির সরকারি পরিসংখ্যান বলছে, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে জানুয়ারিতে সেবা খাতে ব্যাবসায়িক কার্যক্রম খুবই কমেছে।

ইত্তেফাক/

আপনার মন্তব্য লিখুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন