গ্রামীণফোনে প্রথম বাংলাদেশি সিইও

0
146
গ্রামীণফোনের (জিপি) নতুন প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান৷

বাংলাদেশের শীর্ষ টেলিকম অপারেটর গ্রামীণফোনে প্রথমবারের মত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার পদে একজন বাংলাদেশিকে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে৷ ইয়াসির আজমান এই দায়িত্ব পাচ্ছেন৷ 

গ্রামীণফোনের (জিপি) নতুন প্রধান নির্বাহী হচ্ছেন ইয়াসির আজমান৷ প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদ তাকে এক ফেব্রুয়ারি থেকে সিইও হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে৷

ইয়াসির আজমান টেলিনর গ্রুপের বিতরণ এবং ই বিজনেস বিভাগের প্রধান হিসেবে বিভিন্ন দেশে দায়িত্ব পালন করেছেন৷ সবশেষ তিনি গ্রামীণফোনের চিফ মার্কেটিং অফিসার (সিএমও) এবং ডেপুটি সিইও এর দায়িত্ব পান৷ বর্তমান প্রধান নির্বাহী মাইকেল ফোলির স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি৷

গ্রামীণফোন পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান পেটার বি ফারবার্গ বলেন, ‘‘ইয়াসির আজমান গ্রামীণফোন এবং টেলিনর গ্রুপ এর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেই আজকের অবস্থানে এসেছেন৷ আমি অনেক আনন্দিত যে আজমান আমাদের বাংলাদেশী অপারেশন এর নেতৃত্ব দিতে রাজি হয়েছেন৷ তিনি প্রথম বাংলাদেশী হিসাবে গ্রামীণফোনের সিইও হচ্ছেন৷ এটি টেলিনর এবং গ্রামীণফোনের সকলের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ৷’’

বাংলাদেশে গ্রামীণফোনের যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৭ সালে৷ বর্তমানে তাদের বৃহৎ শেয়ারের মালিক নরওয়ের টেলিনর৷ গ্রাহক ও ব্যবসার দিক থেকে জিপি বাংলাদেশের টেলিকম বাজারের বড় অংশ নিয়ন্ত্রণ করছে৷ ইয়াসির আজমানের আগে প্রতিষ্ঠানটির প্রধানের পদে বসার সুযোগ হয়নি কোন বাংলাদেশির৷

নতুন দায়িত্ব প্রসঙ্গে ইয়াসির আজমান বলেন, ‘‘গ্রামীণফোনের সিইও হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের প্রস্তাব পেয়ে আমি অনেক আনন্দিত এবং সম্মানিত বোধ করছি৷ ডিজিটাল বাংলাদেশ, সামাজিক ক্ষমতায়ন এবং আমাদের গ্রাহকদের জন্য যা গুরুত্বপূর্ণ তার সাথে যোগাযোগ করিয়ে দিতে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাসী৷’’

গ্রামীণফোনের সাড়ে সাত কোটি গ্রাহককে উদ্ভাবনী প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নত সেবা দেয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি৷

ইয়াসির আজমান এমন এক সময় এই দায়িত্ব পাচ্ছেন যখন গ্রামীণফোনকে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে৷ গত বছর অপারেটরটিকে সিগনিফিক্যান্ট মার্কেট পাওয়ার (এসএমপি) বা বাজারের তাৎপর্যপূর্ণ শক্তি ঘোষণা করে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছে নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ বিটিআরসি৷ সেই সঙ্গে অডিটের মাধ্যমে ১২ হাজার ৫৯৭ কোটি টাকা পাওনা দাবি নিয়েও সরকারের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক জটিল হয়ে উঠেছে৷ এই পরিস্থিতি সামাল দেয়াই বড় চ্যালেঞ্জ হতে পারে প্রতিষ্ঠানটির প্রথম বাংলাদেশি প্রধান নির্বাহীর জন্য৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here